• রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ০৯:৪৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম

গুরুদাসপুরে শান্তুিপূর্ণভাবে প্রতিমা বিসজর্নের মধ্যে দিয়ে শেষ হলো দূর্গাপূজা

জালাল উদ্দিন (গুরুদাসপুর) / ৬৮ Time View
Update : সোমবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২০

বছর ঘুরে আবার আসার প্রতিশ্রুতি দিয়ে লাখো ভক্তকে ভারাকান্ত করে ঘৌড়া চড়ে বিদায় নিলেন দেবী দুর্গা। এরই মধ্য দিয়ে গুরুদাসপুরে শেষ হলো বাঙালি হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা।

সন্ধ্যায় নন্দকূজা নদীতে ‘দুর্গা মা কি, জয়। মহামায়া কি, জয়। ’ একের পর এক এমন জয়ধ্বনি, ঢাক-ঢোল, কাঁসর ও ঘণ্টা বাজিয়ে প্রতিমা বিসর্জনের আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করা হয়। বিকেলে গুরুদাসপুর ও চাঁচকৈড় মন্দির থেকে শোভাযাত্রা করে ১১ প্রতিমা এখানে বিসর্জন দেওয়া হয়। এবার গুরুদাসপুর উপজেলার সর্বমোট ৩০টি পূজামন্ডপে পূজা অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিসর্জনের্ সময় অনেক ভক্ত কান্নায় ভেঙে পড়েন। সৃষ্টি হয় হৃদয় বিদারক দৃশ্যের।
সকাল থেকেই মণ্ডপে মণ্ডপে নামে ভক্তদের ঢল। এসময় মণ্ডপে মণ্ডপে ঢাকের বাদ্য, শঙ্খধ্বনি, মন্ত্রপাঠ, উলুধ্বনি, অঞ্জলি, নাচ, সিঁদুর খেলা হয়। মুখরিত হয়ে ওঠে মণ্ডপ প্রাঙ্গণ। ধান, দুর্বা, মিষ্টি আর আবির দিয়ে দেবীকে বিদায় জানান ভক্তরা।
একদিকে বিদায়ের সুর, অন্যদিকে উৎসবের আমেজ। রাজ রাজশ্বরী মন্দির, হরিবাশর, বিবর্তন গষ্ঠিসহ বিভিন্ন মণ্ডপে চলে আবির উৎসব।

নন্দকূজার দুই তীরে হাজারো ভক্ত ও দর্শনার্থী ভিড় জমান। অনেকে প্রতিমা বিসর্জনের সময় নৌকায় করে নদীতে আনন্দ-উৎসব করেন। আবার অনেকে মায়ের বিদায়ের বিরহে কান্নায় ভেঙে পড়েন। এ উপলক্ষে চাচকৈড় ও গুরুদাসপুর এলাকায় নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়। তবে মনের মধ্যে অবিরাম ঢাকের বাদ্যি জানান দিয়ে যায় আসছে বছর আসবে মা দূর্গা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category