• সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

চকরিয়ার শাহ্ জব্বারিয়া এতিমখানা দেশপ্রেমিক নাগরিক তৈরীতে ভূমিকা রাখছে, অর্থাভাবে শিক্ষার্থীরা মানবেতর জীবনযাপনে

চকরিয়া প্রতিনিধি / ১৯০ Time View
Update : শনিবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২০

কক্সবাজারে চকরিয়া পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ড়ে পশ্চিম দিগরপানখালী গণি সিকদার পাড়ায় মনোরম পরিবেশে প্রতিষ্ঠানের নামে দিগরপানখালী মৌজায় ক্রয়কৃত ১৪.৫০ শতক জমিতে ১লা জানুয়ারী ১৯৯৫ সালে গড়ে উঠেছে শাহ্ জববারিয়া এতিমখানা। যার সৃজিত বিএস খতিয়ান নং ৮৯৩ ।

এলাকার মেধাবী ও ঝরে পড়া শিক্ষার্থীদেরকে কোরান শিক্ষা দিয়ে কোরানের শিক্ষায় শিক্ষিত করে আদর্শবান যোগ্য নাগরিক তৈরি করছে শিক্ষকগণ। কোরানের শত শত হাফেজ হয়ে কোরানের আলো দেশ বিদেশে ছড়িয়ে পড়ে কোরান শিক্ষা দিয়ে যাচ্ছে তারা।

শাহ্ জববারিয়া এতিমখানা ও হেফজখানা প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হয় মুলত আল্লাহর রহমতকে কেন্দ্র করে এলাকাবাসী ও দানবীরের সার্বিক সহযোগিতায়।

বর্তমানে ১টি বড় বিল্ডিং একাডেমিক ভবন ও টিনের ছাউনি এতিমদের রান্নাঘর এবং এতিমসহ ৫০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে।
৩ জন শিক্ষক /কর্মচারী আছে। পাশে বিশাল সুন্দর গণি সিকদার জামে মসজিদ ও বড়পুকুর আছে ।

২০০৫ সালে নিবন্ধন প্রাপ্ত হয়ে ২০০৭ সালে ২ জন এতিমের নামে ক্যাপিটেশন গ্রান্ট প্রাপ্ত হন।
পর্যায়ক্রমে বৃদ্ধি হয়ে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ২২ জন এতিম শিক্ষার্থীদের তালিকায় শাহ্ জববারিয়া এতিমখানার নামে ক্যাপিটেশন গ্রান্ট প্রাপ্ত টাকা আসে কিন্তু একটি লোভাতুর ও কুচক্রী মহল অবৈধ ভাবে টাকা উত্তোলন পূর্বক লক্ষ লক্ষ টাকা আত্নাসাৎ করে ।

উল্লেখ্য যে, মহামান্য হাইকোর্টে দায়েরকৃত রীটপিটিশন ১৩৮৫৮/২০১৯ ইং মামলায় বিগত ২১-১০-২০২০ ইং তারিখে উভয়পক্ষের অাইনজীবিদের শুনানী শেষে মাননীয় বিচারপতগণ রহমানিয়া বালক বালিকা এতিমখানার নামকরণের পত্র ও ক্যাপিটেশন গ্রান্ট স্থগিত করেন /নিষেধাজ্ঞা দেন। যা জালিয়াতি করে কাগজ সৃজন পূর্বক শাহ্ জববারিয়া এতিমখানার নিবন্ধন নং কক্স ২৯৪/০৫ ছিনতাই করেছিল।

এদিকে শাহ জব্বারিয়া এতিমখানার শিক্ষার্থীরা অার্থিক অভাবে মানবেতর জীবনযাপন করছে। কমিটি ও এলাকাবাসী প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category