• বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৩৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
পেকুয়ায় দুই হাজতি মেম্বার নির্বাচিত এবারে দুই নারীসহ আমিরাত থেকে ২৬ জন প্রবাসী সিআইপির মর্যাদা পেয়েছেন সাবেক সাংসদ শাহাদাত হোসেন চৌধুরীর জানাজা সম্পন্ন, পারিবারিক কবরস্থানে দাফন কবি হিমেল বরকত’র সাহিত্যে বিপন্ন মানুষের কন্ঠস্বর ঠাঁই পেয়েছে নির্বাচনী সহিংসতা: পেকুয়ায় আ’লীগ নেতার বসতবাড়ি ভাংচুর চকোবি হোস্টেলের সমাপনি ক্লাস আনুষ্ঠানিকভাবে সম্পন্ন ঠাকুরগাঁও নির্বাচন সহিংসতায় বিজিবি’র গুলিতে নিহত ৩ আহত ৫ ঠাকুরগাঁওয়ে তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে ১৪টি নৌকা ৪টি সতন্ত্র প্রার্থীর জয়লাভ সাবেক সাংসদ এডভোকেট শাহাদাত হোসেন চৌধুরী আর নেই টেকনাফ সমিতি ইউএই’র বার্ষিক কর্মশালা ও মতবিনিময় সভা’২১ অনুষ্ঠিত

চকরিয়ায় সরকারী ঘোষণার দ্বিগুণ এলপি গ্যাসের দাম!

এম, রিদুয়ানুল হক, নিজস্ব প্রতিনিধি / ২৩৫ Time View
Update : সোমবার, ১৮ জানুয়ারী, ২০২১

বছরের প্রথম দিন থেকে চকরিয়ার বাজারে এলপিজির (লিকুইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস) দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। সরকারি ঘোষণা ছিল এলপি গ্যাসের সর্বোচ্চ দাম ৫৮০-৬০০ টাকা পর্যন্ত। কিন্তু মানা হচ্ছে না এই ঘোষণা। কেন বৃদ্ধি পেয়েছে তার সঠিক উত্তর কেউ দিতে পারছেন না।

গত মাসের তুলনায় সোমবার ১৮ জানুয়ারী চকরিয়াতে এলপি গ্যাসের প্রতিটি সিলিন্ডার (১২ কেজি) বিক্রি হচ্ছে ৯৭০ টাকা থেকে ১০০০ টাকা দামে।

চকরিয়ার একাধিক সরবরাহকারী, পরিবেশক ও ক্রেতা সূত্রে জানা গেছে, গেল ডিসেম্বর পর্যন্ত বাসাবাড়িতে ব্যবহৃত সাড়ে ১২ কেজি ওজনের গ্যাস সিলিন্ডারের মূল্য ছিল ৬৫০-৭০০ টাকা। ইংরেজি নববর্ষ থেকে এটি বিক্রি করছে ৯৭০-১০০০ টাকায়। হোটেলে বা বাণিজ্যিকভাবে ব্যবহৃত ৩৫ কেজির গ্যাস বিক্রি হচ্ছে তিন/সাড়ে তিন হাজার টাকায় এবং ৪৫ কেজি ওজনের গ্যাস এখন বিক্রি হচ্ছে ৪/৫ হাজার টাকায়।

হঠাৎ করেই বোতলজাত গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ফলে হোঁচট খাচ্ছেন ক্রেতারা। ক্রমবর্ধমান ব্যয় বাজেটে বিপাকে পড়ছে নির্ধারিত আয়ের মধ্যবিত্ত পরিবার।

চকরিয়ার অনেক বিক্রেতা বলছেন, শীতপ্রধান দেশগুলোতে কাঁচামালের চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় আন্তর্জাতিক বাজারে গ্যাসের দাম বেড়েছে। বাংলাদেশের এলপি গ্যাসের মার্কেটেও এর প্রভাব পড়েছে। প্রাইভেট সব এলপি গ্যাস কোম্পানির সমিতির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী গ্যাসের এ মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে।

চকরিয়ার কয়েকজন গ্যাস ব্যবসায়ী বলেছেন, ‘শীতকালে আন্তর্জাতিক বাজারে কাঁচামালের চাহিদার বেশির কারণে অধিক মূল্যে গ্যাস কিনতে হচ্ছে; সে কারণে কোম্পানিগুলোর সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে। আগামী মার্চ-এপ্রিলে গ্যাসের দাম আবার কমে যাবে।’

সোমবার চকরিয়া পৌর শহরের চা বিক্রেতা আব্দুর রহিম বলেন, ‘দোকানে জ্বালানির কাজে সিলিন্ডার গ্যাস ব্যবহার করি। আজকে গ্যাস শেষ হওয়ায় কিনতে গিয়ে দেখি দাম বেড়েছে। যে গ্যাস আগে ৭০০ টাকায় কিনেছিলাম তা আজকে কিনলাম এক হাজার টাকায়। এখন জ্বালানির খরচ বাড়ায় লাভ কম হবে।’

পৌর শহরের গ্যাসের খুচরা বিক্রেতা মৌলানা কামাল হোসেন বলেছেন, ‘আমরা পরিবেশকের কাছ থেকে কিনে এনে খুচরা বিক্রি করছি। ১ জানুয়ারি থেকে বেশি দামে কিনছি, তাই আগের তুলনায় বাড়তি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে। তাতে আমাদের বিনিয়োগের পরিমাণ বাড়লেও লাভ বাড়েনি।’ চলতি মাসের এক তারিখ থেকে বিভিন্ন কোম্পানির সিলিন্ডার গ্যাসের দাম বাড়ায় বাড়তি দামে আমাদের উত্তোলন করে খুচরা বিক্রেতাদের কাছে সরবরাহ করতে হচ্ছে। এতে আমাদের করার কিছু নেই।

অনেক ব্যবসায়ী জানিয়েছেন, ‘১ জানুয়ারি থেকে ১২ কেজি ওজনের বসুন্ধরা এলপিজি গ্যাস কোম্পানির কাছ থেকে ৯০০ টাকায় কিনে ১০০০ টাকা, যমুনা এলপিজি গ্যাস কোম্পানির কাছে ৯৪০ টাকায় কিনে ১০৫০ এবং ওমেরা এলপিজি গ্যাস কোম্পানির কাছে ৯৫০ টাকায় কিনে করে ৯৮০ টাকায় খুচরা বিক্রেতাদের কাছে সরবরাহ করছি।’

এ বিষয়ে চকরিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ শামসুল তাবরীজ বলেন, ‘দাম বৃদ্ধি পেয়েছে কিনা সে বিষয়ে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। দাম না বাড়লেও বেশি দামে বিক্রি করা হলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category