• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম
খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে গবেষণার ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর ময়মনসিংহে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৫ জনসহ নিহত ৭ চকরিয়ায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস উল্টে খাদে, ১৩ যাত্রী আহত সিংড়ার চৌগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান ভোলা’র নির্বাচনী উঠান বৈঠক ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈল হাসপাতালে ডায়রিয়া ২ শিশুর মৃত্যু চকরিয়ায় মন্দিরে হামলার ঘটনায় ২০ জনের নাম উল্লেখপূর্বক আসামী ৩০০ জন নানা আয়োজনে রুদ্রের জন্মবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁও রানীশংকৈলে বিশ্বখাদ্য দিবস পালন ও ইঁদুর নিধন অভিযান এর উদ্বোধন পেকুয়ায় দোকানঘর থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈলে আ’লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থিতা ঘোষণা

ঠাকুরগাঁওয়ে চলতি সপ্তাহে করোনা শনাক্ত ২৬৭ মৃত্যু ১০

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি / ৬৮ Time View
Update : মঙ্গলবার, ১৫ জুন, ২০২১

ঠাকুরগাঁওয়ে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রায় প্রতিদিন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু বরণ করছে আক্রান্ত ব্যক্তিরা। ঠাকুরগাঁওয়ে গত শুক্রবার সর্বোচ্চ চার ব্যক্তি মারা গেছেন। এনিয়ে এক সপ্তাহে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ১০ জন।

সিভিল সার্জন কার্যালয় সূত্র জানায়, গত এক সপ্তাহে ৭৬৩ টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৬৭ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৪.৪৬ এর কিছুটা ওপরে। কিন্তু মে মাসের তুলনায় চলতি জুন মাসে পরিস্থিতি পাল্টে গেছে।

বিশেষ করে ৭ জুন থেকে প্রতিদিনই করোনা শনাক্তের রেকর্ড ভেঙেছে এ জেলায়। ৮ জুন ১০৬টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে শনাক্ত হয় ৩০ জন আক্রান্ত। শনাক্তের হার ২৮ দশমিক ৩০ শতাংশ। ৯ জুন ১১৩টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে ৩৯ জন করোনা শনাক্ত হয়। এদিন করোনা শনাক্তের হার ছিল ৩৪ দশমিক ৫১ শতাংশ।

১০জুন ১৩০টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ৪৩ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক শূন্য ৭ শতাংশ। ১১জুন ৪৬টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ২১ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৪৫ দশমিক ৬৫ শতাংশ। ১২জুন ১৫০টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ৪৯ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩২ দশমিক ৬৬ শতাংশ। এটি এই বছর এক দিনে সর্বোচ্চ করোনা শনাক্ত।

১৩ জুন ১২৪টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ৪২ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৩৩ দশমিক ৮৭ শতাংশ। ১৪ জুন ৯৪টি নমুনা পরীক্ষা ফলাফলে ৪৩ জন করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার ৪৫ দশমিক ৭৪ শতাংশ।

করোনা সংক্রমণের আশঙ্কার মধ্যেও মানুষ স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চলায় সদর উপজেলায় লোকজনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতে জরিমানা করা হয়েছে। পাশাপাশি সীমান্ত এলাকায় লোকজনের চলাচল বন্ধ করতে পাহারা জোরদার করা হয়েছে।

ঠাকুরগাঁওয়ের সিভিল সার্জন মাহফুজার রহমান সরকার বলেন, শহর-গ্রামাঞ্চলে করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে। করোনার সংক্রামণ প্রতিরোধে মাস্ক ব্যবহার ও স্বাস্থবিধি মানার বিকল্প নেই। তবু মানুষ সচেতন হচ্ছে না। স্বাস্থ্যবিধি অমান্য করে চলাচল করার কারণেই সংক্রমণের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে।

জেলা প্রশাসক কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলেন, মানুষকে মাস্ক পরা ও স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্য করায় প্রশাসন মাঠে আছে। এরপরও শনাক্তের হার না কমলে, বিকল্প ব্যবস্থা নেওয়া হতে পারে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category