• শনিবার, ১৬ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম
খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে গবেষণার ওপর গুরুত্বারোপ প্রধানমন্ত্রীর ময়মনসিংহে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৫ জনসহ নিহত ৭ চকরিয়ায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাস উল্টে খাদে, ১৩ যাত্রী আহত সিংড়ার চৌগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান ভোলা’র নির্বাচনী উঠান বৈঠক ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈল হাসপাতালে ডায়রিয়া ২ শিশুর মৃত্যু চকরিয়ায় মন্দিরে হামলার ঘটনায় ২০ জনের নাম উল্লেখপূর্বক আসামী ৩০০ জন নানা আয়োজনে রুদ্রের জন্মবার্ষিকী পালন ঠাকুরগাঁও রানীশংকৈলে বিশ্বখাদ্য দিবস পালন ও ইঁদুর নিধন অভিযান এর উদ্বোধন পেকুয়ায় দোকানঘর থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার ঠাকুরগাঁও রাণীশংকৈলে আ’লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থিতা ঘোষণা

নৌকাকে বিজয় করতে বিবাদ ভুলে যান – চকরিয়ায় কর্মী সমাবেশে সিরাজুল মোস্তফা

নিজস্ব প্রতিবেদক,চকরিয়া / ৮০ Time View
Update : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১

জাফর আলম এমপি ও জাহেদুল ইসলাম লিটুর সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি প্রত্যাহারের পর নৌকাকে বিজয় করতে জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে এখন ঐক্যবদ্ধ চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ। ভেদাভেদ ভুলে গিয়ে নৌকাকে বিজয় করার ঘোষণা দেন সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা।

১৭ জুন বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটায় এটিএন পার্কে চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিশাল কর্মী সমাবেশে জেলা আ.লীগের নেতৃবৃন্দ এসব কথা বলেন।

চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাংসদ জাফর আলমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন চৌধুরীর সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি ছিলেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট সিরাজুল মোস্তফা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক কক্সবাজার পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান চৌধুরী।

এসময় প্রধান অতিথি সিরাজুল মোস্তফা বলেন, চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে নৌকাকে বিজয় করতে হবে। ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগকে কেউ ঠেকাতে পারবে না। আমাদের মধ্যে অনেক ভুল বুঝাবুঝি থাকতে পারে। আবার সমাধানও হবে।
তিনি আরও বলেন, যখনই শেখ হাসিনার নৌকাকে বিজয় করার কথা আসবে সেখানে আর কোন বিবাদ থাকতে পারে না। বিবাদ সৃষ্টি করে লাভ নেই। যে কোন সমস্যার সমাধান আমাদের সাংগঠনিকভাবে করতে হবে।
প্রধান বক্তা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এডভোকেট ফরিদুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের যে দায়িত্ব দিয়েছে সেটা অক্ষরে অক্ষরে পালন করবো। এমন কোন কাজ করবো না যেটা দলের ভাবমূর্তি নষ্ঠ হয়।
তিনি আরও বলেন, মঞ্চে যারা বসেন তারা শেখ হাসিনার সাথে বেঈমানী করেন! কিন্তু যারা সামনে বসেন তারা কোনদিন শেখ হাসিনার সাথে বেঈমানী করে না। এটাই বাস্তবতা। পৌর নির্বাচনে নৌকার প্রতি আস্তা রাখার জন্য নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন। সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে নৌকাকে বিজয় করতে হবে।
বিশেষ অতিথি সাধারণ সম্পাদক পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান বলেন, জেলার আটটি উপজেলা ও চারটি পৌরসভায় যেভাবে সম্মান পাওয়ার কথা আমরা সেভাবে পাইনি। এরপরও জননেত্রী হাসিনা যে ভালাবাসা দেখিয়েছেন সেটা ভূলার নয়। কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্দেশনা বাস্তবায়ন করে যাবো। গণভবনে বঙ্গবন্ধুর কন্যাকে বাচাঁনোর জন্য আমাদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। আপনারা আসতে না বললেও জেলা আ.লীগের নেতা হিসেবে আমরা আসবো।

সভাপতির বক্তব্য চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি সাংসদ জাফর আলম বলেন, পৌরসভা নির্বাচনে এমপিকে বাদ দিয়ে নৌকা বিজয় করার চেষ্ঠা একধরণের ষড়যন্ত্র করা। আমাকে অবহেলা করা হয়েছে। যেখানে বড় নৌকা বিজয় করতে পারি সেখানে ছোট নৌকা বিজয় করা কোন ব্যাপার না।
তিনি আরও বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের যে কোন সিদ্বান্ত মেনে চলবো। কিন্তু চকরিয়া-পেকুয়ায় কোন সিদ্বান্ত নিতে হলে অবশ্যই এমপিকে জানাতে হবে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, জেলা আ.লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুবুল হক মুকুল, এডভোকেট রনজিত দাশ, জেলা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট আয়াছুর রহমান, আবদুল খালেক, বন ও পরিবেশ সম্পাদক জেলা পরিষদ সদস্য কমরুউদ্দিন আহমদ, ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ইউনুছ বাঙ্গালী, শ্রম সম্পাদক গাজী মোস্তাক, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী, চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী, কক্সবাজার সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কাইছারুল হক জুয়েল, উপ-দপ্তর সম্পাদক এমএ মনজুর, আমিনুর রশিদ দুলাল, পেকুয়া মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান উম্মে কুলসুম মিনু, পেকুয়ার আহবায়ক আবু হেনা মোস্তফা কামাল, সদস্য সচিব আবুল কাসেম, চকরিয়া পৌরসভার সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটু ও সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরী।

এদিকে ১৭ জুন বিকাল তিনটায় এটিএন পার্কে চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ, পৌরসভা আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

প্রসঙ্গত, পৌর নির্বাচনে নৌকার বিপক্ষে কাজ করার অভিযোগ এনে গত ৮ জুন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহেদুল ইসলাম লিটুকে অব্যহাতি দেন জেলা আওয়ামীলীগ। ওইদিনই ক্ষুব্ধ হয়ে সাংসদ জাফর আলমের নেতৃত্বে রাতে পৌরশহরের চিংড়ি চত্বর এলাকায় নৌকার প্রার্থী বর্তমান মেয়র আলমগীর চৌধুরী ও পৌর আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক উদ্দিন চৌধুরীর উপর হামলা চালানো হয়। হামলার ঘটনার জের ধরে পরদিন বিকালে জেলা আওয়ামী লীগ সাংসদ জাফর আলমকেও সভাপতির পদ থেকে অব্যাহতি দেন। এঘটনায় বিক্ষুব্ধ হয়ে উঠে আওয়ামীলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তারা সড়ক অবরোধ ও ভাঙচুর করে চকরিয়া পৌরশহরে। একপর্যায়ে সাংসদ জাফর আলম ও জেলা আওয়ামী লীগের মধ্যে একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ পাল্টাপাল্টি অভিযোগ তুলে। এ ঘটনা নজরে আসে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের। গত ১৪ জুন ধানমন্ডির প্রধানমন্ত্রী রাজনৈতিক কার্যালয়ে দু’পক্ষ নিয়ে জরুরী বৈঠকে বসেন কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। ওইদিনই উভয় পক্ষকে সমঝোতা করে দেন। পরে ১৭ জুন চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে কর্মী সভা করে নৌকার পক্ষে কাজ করার নির্দেশনা দেন কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগ নেতৃবৃন্দ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category