• মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১১:০৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
গৌরাঙ্গ চন্দ্র দে’র মুক্তি ও প্রতিমা ভাঙচুর, নির্যাতনের প্রতিবাদে ঠাকুরগাঁওয়ে মানববন্ধন বিক্ষোভ চকরিয়ায় সর্ববৃহৎ নারী উদ্যোক্তা সংগঠন হস্তশিল্প পরিবারের বর্ষপূর্তি পালিত খুটাখালী বাজার পরিচালনা কমিটির সভাপতি জয়নাল, সাধারণ সম্পাদক মিটু আনোয়ারায় ১৫০০পিস ইয়াবাসহ আটক-৩ ট্রাফিক পুলিশের ওপর বিরক্ত হয়ে নিজের মোটরসাইকেলে আগুন নাটোরের সিংড়ায় সরকারি গাছ কাটার অভিযোগ উঠেছে! সিংড়ায় এএসআই সানোয়ার কর্তৃক ব্যবসায়ী কে মারপিটের প্রতিবাদে মানববন্ধন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের একজন মানবিক কর্মকর্তা গোলদার শাহবাজ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে রোহিঙ্গা ইস্যুতে আইসিআরসি প্রধানের আলোচনা আরো রাশিয়ান এস-৪০০ কিনবে তুরস্ক : এরদোগান

নড়াইলে কৃষি অফিসের অবহেলায় ভেস্তে গেল কৃষক প্রণোদনা!

নড়াইল প্রতিনিধিঃ / ২৭ Time View
Update : মঙ্গলবার, ২৭ জুলাই, ২০২১

নড়াইল সদর উপজেলার উপ- সহকারী কৃষি অফিসারের বিরুদ্ধে সীমাহীন দূর্নীতি, অনিয়িম, সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ পাওয়া গেছে। যানা গেছে , প্রতিটি ইউনিয়নে ইউনিয়ন মাঠ কর্মী নিজেরা সরকারি প্রণোদনা কর্মসূচির সার, বীজ প্রদানের তালিকা তৈরী করছেন। আর এই তালিকায় ভূলে ভরা, নাম এক জনের ছবি আর এক জনের ব্যবহার করে লক্ষ লক্ষ টাকার সার, বীজ সিন্টিকেটের মাধ্যমে কালো বাজারে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। নীতিমালায় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দের সাথে নিয়ে তালিকা প্রনয়নের কথা থাকলে ও এই নির্দেশনা মানা হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন একাধিক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা। জানা গেছে সদরের হবখালী ইউনিয়নের দায়িত্ব রত ইউনিয়ন কৃষি অফিসার পরিতোষ মালাকার তিনি চেয়ারম্যানের দেওয়া নাম বাদ দিয়ে নিজের ইচ্ছে মত তালিকা প্রনয়ন করেছেন । আর সেই তালিকায় যে সার ও বীজ দেওয়া হয়েছে। সেগুলি উপকার ভোগীরা পাই নি। এই সারের তালিকায় যাদের নাম দেওয়া হয়েছে সেখানে অন্য লোকের ছবি ব্যবহার করা হয়েছে । এতে করে দূর্নীতির বিষয়টি সুস্পষ্ট হয়ে গেছে। যানা গেছে।

২০২০- ২০২১ অর্থ বছরের খরিপ – / ২০২১ – ২২ মৌসুমে রোপা আমন প্রণোদনা কর্মসূচি র আওতায় রোপা আমন( হাইব্রিড) ফসলের বীজ ও রাসায়নিক সার বিতারন ও ২০২০- ২০২১ অর্থ বছরের খরিপ -২/২০২১- ২২ রোপা আমন প্রণোদনা কর্মসূচির আওতায় রোপা আমন (উফশী) ফসলের বীজ ও রাসায়নিক সার বিতারন করা হয়েছে।

জেলায় সর্বমোট ৩৫০০জন কৃষকে ( উফসি)ও হাইব্রীড ধানের বীজ ও রাসায়নিক সার বিতারন করা হয়েছে ।

যার ভিতর সদরে উফসি ৫০০ হাইব্রিড ১২০০সর্বমোট ১৭০০। লোহাগড়া উপজেলা উফসি ৩০০ ও হাইব্রিড ৫০০ সর্বমোট ৮০০ ও কালিয়া উপজেলা উফসি ২০০ হাইব্রিড ৮০০ সর্ব মোট ১০০০ সব মিলিয়ে জেলায় ৩৫০০ কৃষকের মাঝে এই প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে।

আর এই প্যাগেজে রয়েছে উফসী ধানের বীজ ৫ কেজি, ডি এ পি সার ১০ কেজি ও এম ও পি সার ১০ কেজি। যার বর্তমান বাজার মূল্য ৫ কেজি বীজের দাম ২৭৫ টাকা, ১০ কেজি ডি এ পি ১৬০ টাকা ও ১০ কেজি এম ও পি ১৫০ টাকা মোট ৫৮৫ টাকা। অপর দিকে হাইব্রিড বীজ ২ কেজি, ডিএপি ২০ কেজি এমওপি ১০ কেজি যার বাজার মূল্য বীজ ৬৩০ টাকা ২০ কেজি ডিএপি ৩২০ টাকা এমওপি ১০ কেজি ১৫০ টাকা মোট ১১০০ টাকা। অর্থাৎ এক জন কৃষক যদি উফসী বীজ ও সার পায় তাহলে সেই কৃষক পাবে ৫৮৫ টাকার বীও ও সার আর যদি হাইব্রিড পায় তাহলে পাবে ১১০০ টাকার বীজ ও সার। কিন্তু পরিতাপের বিষয়
এই সার বিতারন করার নামে সরকারের লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। কৃষকদের এই সার সরাসরি চলে গেছে কালো বাজারে। কৃষকের নাম থাকলে ও মিল হয়নি ছবিতে। আরো মজার বিষয় যে সাক্ষর গুলো দিয়ে সার উৎত্তলন করা হয়েছে সেই সাক্ষরগুলো কৃষকের না।

সরকারের এই মহতি উদ্যোগ ভেস্তে গেছে বলে দাবি করেন হবখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজুর ইসলাম চঞ্চল। তিনি বলেন, তালিকায় ৩৮ নাম্বারে রয়েছে মন্নু শেখ। সেখানে ছবি ব্যবহার করা হয়েছে আবদুল্লাহ কাদেরের। এছাড়া ও তালিকায় অনেকের ছবির সাথে নামের মিল নেই।

উপ-সহকারী কৃষি অফিসার পরিতোষ মালাকার বিষয়ে জানান, দুই একটা ছবি এদিক ওদিক হতে পারে। আর হবখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এক জন দূর্ণীতিবাজ তাই ওকে বাদ দিয়ে আমি তালিকা প্রনয়ন করিছি।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ জাহিদুল ইসলাম বিশ্বাস জানান, হবখালী থেকে কিছু অভিযোগ পাওয়া গেছে। এই সার বাজারে বিক্রি হচ্ছে কি না আমি জানি না।

সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাদিয়া ইসলাম জানান, এ বিষয়ে আমি জানি না। আজ নতুন শুনলাম ।

নড়াইল উপ-পরিচালক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, খামারবাড়ি, দীপক কুমার রায় বলেন, এ বিষয়ে কোন অভিযোগ আমার কাছে আসেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category