• মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ১২:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
গাজায় ইসরাইলি হামলায় নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২০০ চকরিয়ায় এসএসসি ব্যাচ’৯১ এর উদ্যোগে ঈদ পুনর্মিলনী সম্পন্ন মোংলা পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের নতুন কমিটি ঘোষনা সভাপতি মোহন সাধারণ সম্পাদক দিদার চকরিয়ায় সাংবাদিকের উপর হামলার ঘটনায় মামলা তুলে নিতে আদর বাহিনীর হুমকি, জিডি করায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ! মোংলায় করোনা মোকাবেলায় দুস্থদের চাল দিলেন উপমন্ত্রী হাবিবুন নাহার চকরিয়া পৌর এলাকায় কোচপাড়ায় পৈতৃক ভিটা জবর দখলে নিতে সন্ত্রাসী হামলা ঈদের দিনে ঠাকুরগাঁওয়ে সড়কে প্রাণ গেল তিনজনের সময়ের আগেই ঢাকায় শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল গাজায় ইসরাইলের প্রচণ্ডতম বোমাবর্ষণ, টার্গেট হামাসপ্রধানও লন্ডনে ফিলিস্তিনিদের সমর্থনে ইসরাইলি দূতাবাসে দেড় লাখ লোকের বিক্ষোভ

পেকুয়ায় আবারো সংবাদ সম্মেলনে সেই স্কুল ছাত্রী আজমিন সোলতানা: আমি ধর্ষিতা ও অপহৃত নই, হয়রানি ও অপপ্রচার বন্ধ করুন

পেকুয়া প্রতিনিধি: / ১১৬ Time View
Update : শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২১

পেকুয়ায় চাঞ্চল্যকর ধর্ষণ মামলার বাদী মগনামা উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ শ্রেনীর ছাত্রী আজমিন সোলতানা আবারো সংবাদ সম্মেলন আহবান করেছেন। দ্বিতীয় দফা প্রেস ব্রিফিংয়ে মেয়েটি পেকুয়ায় কর্মরত প্রিন্ট ও ইলেকট্রিনিক্স মিডিয়ার সংবাদ কর্মীদের মুখোমুখি হয়েছেন। ২২ এপ্রিল (বৃহস্পতিবার) সন্ধ্যার দিকে এক প্রতিক্রিয়ায় স্কুল ছাত্রী আজমিন সোলতানা জানিয়েছেন আমি ধর্ষিতা নই, এমনকি আমি অপহৃত নই। আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে পুলিশ ধর্ষণ মামলা রুজু করে। দ্বিতীয় দফায় আমাকে নিয়ে আবারো চক্রান্ত শুরু হয়েছে। এবার বলা হচ্ছে আমি নাকি অপহরণ হয়ে গেছি। আমি অপহরণ হয়নি। আমি আমার পরিবারের সদস্যদের হেফাজতে রয়েছি। তবে পুলিশ আমাকে খোঁজছে। আমি পুলিশকে মোটেই দেখা দেওয়ার পক্ষে নই। কারণ পুলিশ ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে কাজ করছে। প্রথমে যে ভাবে ষড়যন্ত্র হয়েছে এটাই প্রতীয়মান হচ্ছে যে, পুলিশের সাথে দেখা করা মানেই আবারো আমার সর্বনাশ হওয়া। পুলিশ এখন আমার হবু বর নুর আবিদের চাচাকে মামলায় জড়ানোর চেষ্টা করছে। চেয়ারম্যান ও আমার হবু চাচা শাশুড় জিয়াউর রহমান প্রকাশ জিয়ার মধ্যে দ্বন্ধ রয়েছে। পূর্বের ওই দ্বন্ধের জের ধরে এখন পুলিশ লেলিয়ে দিয়ে আমার আত্মসম্মান বোধ হানি করে তারা ফায়দা লুটতে চাই। আমি একজন অসহায় মেয়ে। বাবা সাবেক ইউপি সদস্য ছিলেন। বাবা মারা গেছেন। মা অসুস্থ। পরিবারে আর কোন উপযুক্ত অভিভাবক নেই। বলতে গেলে আমি একজন অনাথ মেয়ে। মা বেঁচে থাকলেও নাই এর মত। বড় বোন রেহেনা বেগম মিথ্যা সংবাদ সম্মেলন করেছেন। সে দিন থানায় আমার বড় বোনও এসেছিল। তিনি মামলার পক্ষে ছিলেন না। মহিলা পুলিশ ও এস,আই সিদ্দিক মামলা রুজু করাতে আমার বড় বোনের সাথে থানায় তর্কাতর্কিতে জড়ায়। এক পর্যায়ে মামলার পক্ষে না থাকায় পুলিশ থানার ভিতরে আমার বোন রেহেনাকে মানসিক ভাবে হেনস্থা করে। পুলিশের সাথে একীভূত হননি। এরপর রাতে আমার বড়বোন রেহেনা থানা থেকে পুলিশের অগোচরে থানা থেকে বের হন। পুলিশ তাকে গভীর রাতে জিএমসি স্কুলের সামনে থেকে নিয়ে যায়। এরপর আমরা ২ বোনকে রাতে থানায় আটকিয়ে রাখে। তবে মামলা দায়েরের একদিন পর আমার বোনের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন হয়। দেখছি আমার বিষয় নিয়ে তিনি সংবাদ সম্মেলন করে বক্তব্য দিয়েছেন। বলা হয়েছে আমাকে নাকি অপহরণ করা হয়েছে। আসলে আমার বোনের সংবাদ সম্মেলন ও অপহরণ সম্পর্কিত বক্তব্য মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। আমার বোন রেহেনা ও ভগ্নিপতি ফিরোজ টাকার কাছে বিক্রি হয়ে গেছে। মূলত জিয়াউর রহমানকে টার্গেট করে আরেকটি মিথ্যা মামলা রুজু করতে পায়তারা চলছে। আমি বলছি আমাকে নিয়ে আর রং ছিটানো থেকে থেমে যান। আমিতো একজন কিশোরী। সকলকে বলবো আমি আপনাদের মেয়ে। আবার কারো বোন, কারো না কারো সন্তান। একজন মেয়ের প্রতি সমাজের দায়িত্ব থাকে। আমার আত্মসম্মান বোধ ও মর্যাদা রক্ষা করার দায়িত্ব আপনাদের। গরীব বলে আমার কি বেঁচে থাকার অধিকার নেই। আপনাদের বোন ও মেয়ে হলে আজকে কি অবস্থা হতো । আমি পুলিশকে বলবো আমি সুস্থ আছি। শান্তিতে আছি। স্বাভাবিক জীবন যাপন করছি। আপনারা আমাকে নিয়ে টানা হ্যাচড়া বন্ধ করুন। সাতঘরপাড়া ষ্টেশনে পুলিশের হয়রানি বন্ধ করুন। না হয় আমি এ অবিচারের বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকবো। প্রয়োজনে এ সব হয়রানি থেকে নিস্কৃতি পাওয়ার জন্য পুলিশের আইজিপি মহোদয়ের কাছেও যাবো। এরপরও সমাধান না হলে প্রয়োজনে এ অবিচারের বিরুদ্ধে প্রতিকার চাইতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে যাবো। এ দিকে স্কুল ছাত্রী আজমিন সোলতানা দ্বিতীয় দফা সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিয়েছেন। এর আগে ২০ এপ্রিল রাতে আজমিন সোলতানা সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন। এটি ছিল তার প্রথম সংবাদ সম্মেলন। তার বোন রেহেনা বেগমও একটি সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দিয়েছেন। এর একদিন পর রেহেনা বেগমের সংবাদ সম্মেলন ও বক্তব্যকে নাকচ করে ভিকটিম আজমিন সোলতানা আবারো সংবাদ সম্মেলন করে উপরোক্ত কথাগুলো উপস্থাপন করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category