• রবিবার, ২৩ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৫৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম

পেকুয়ায় মুঠোফোনে প্রেমের প্রস্তাব- আহত-২

পেকুয়া প্রতিনিধি: / ২১২ Time View
Update : শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১

পেকুয়ায় হামলায় পোশাক কর্মীসহ ২ নারী আহত হয়েছে। স্থানীয়রা জখমী বৃদ্ধ মাকে উদ্ধার করে পেকুয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। পোশাক কর্মী নারীকে মুঠোফোনে প্রেমের প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। বিষয়টি জানাজানি হলে দু’পক্ষের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। এর সুত্র ধরে মুঠোফোনে নারীকে উত্যক্তকারী ব্যক্তিসহ কয়েকজন মিলে মা ও মেয়েকে পিটিয়ে আহত করে। ১ জুলাই (বৃহস্পতিবার) বিকেলে উপজেলার সদর ইউনিয়নের আলেকদিয়াকাটা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা ছেনুয়ারা বেগম (৩৫) ও তার বৃদ্ধা মা মাহমুদা খাতুনকে(৫৫)। আহত মাহমুদা খাতুন ওই গ্রামের মৃত আবুল কাসেমের স্ত্রী ও মুন্নার স্ত্রী ছেনুয়ারা বেগম।
স্থানীয় সুত্র জানা গেছে, মুঠোফোনে কথোপকথন নিয়ে আলেকদিয়াকাটায় মুন্নার স্ত্রী পোশাক কর্মী ছেনুয়ারা বেগম ও প্রতিবেশী মৃত শাহাব মিয়ার পুত্র ফজল করিমের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়েছে। এর সুত্র ধরে ফজল করিমসহ কয়েকজন দুবৃর্ত্তরা ছেনুয়ারার বাড়িতে হানা দেয়। এ সময় উত্তেজিত লোকজন ছেনুয়ারাকে ছুলের মুঠি ধরে টানা হ্যাঁচড়া করে পিটিয়ে জখম করে। খবর পেয়ে ছেনুয়ারার মা মাহামুদা খাতুন ওই স্থানে যান। হামলাকারীরা বৃদ্ধ মাহামুদা খাতুনকে লাথি, কিল, ঘুসিসহ পিটিয়ে জখম করে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাহামুদার মেয়ে ছেনুয়ারা বেগম পেশায় একজন গার্মেন্টস কর্মী। চট্টগ্রাম শহরে পোশাক শিল্পে কাজ করে। জয়পুরহাটের মুন্নার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তবে ২ বছর ছেনুয়ারা ও মুন্না দম্পতির সংসারে অবনতি ছিল। এ সুবাধে প্রতিবেশী ফজল করিম মুন্নার স্ত্রী ছেনুয়ারাকে পরকীয়া প্রেমের প্রস্তাব দেয়। তারা ২ জনের মধ্যে চুপিসরে সম্পর্ক ছিল। কয়েক দিন আগে ছেনুয়ারা স্বামী মুন্না পেকুয়ায় ছেনুয়ারাদের পৈত্রিক বাড়িতে আসে। এর সুত্র ধরে পরকীয়া প্রেমিক ফজল করিম ছেনুয়ারাকে বকাঝকা করে। মুঠোফোনে মুন্নার স্ত্রীকে চরম বিরক্তি করতেন। ছেনুয়ারা ফজল করিমের মুঠোফোন নম্বর ব্লক করে দেয়। এ নিয়ে বিরোধ তীব্রতর হয়। এর সুত্র ধরে ঘটনার দিন বিকেলে ফজল করিম ছেনুয়ারাকে বাড়িতে গিয়ে হামলা চালায়। ছেনুয়ারা বেগম বলেন, আমি চট্টগ্রামের একটি গার্মেন্টেসে চাকুরী করি। ফজল করিম আমাকে মুঠোফোনে যৌন হয়রানি করে। আমি বার বার বিরক্তিবোধ করছিলাম। কিন্তু কিছুতেই থামছিলনা ওই ব্যক্তি।

স্থানীয় শালিসকার মোজাম্মেল হক, মনির উদ্দিন মনু,মোকতার আহমদ বলেন, বৈঠকে আমরা ফজল করিমকে শতর্ক করে দিয়েছিলাম। মৌখিকভাবে সে আর বিরক্ত করবেনা বলে অঙ্গিকার করে। কিন্তু সে কথা রাখেনি। তারা মা মেয়েকে পিটিয়ে তারা রাস্তায় ফেলে রাখে। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। এ ব্যাপারে জানতে ফজল করিমের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হয়। সংযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় তার বক্তব্য নেয়া যায়নি।

তবে তার স্ত্রী দিলুয়ারা বেগম বলেন, ছেনুয়ারা বেগম আমার সংসারে অশান্তি সৃষ্টি করছে। আমার স্বামীকে ভাগিয়ে নিতে চায়। আগে ওই মহিলার সাথে আমার স্বামীর পরকিয়া সম্পর্ক ছিল,তবে এখন নেই। ব্ল্যাকমেইল করে স্বামীকে ফাঁসাতে চায় সে। ওই মেয়ের সাথে অনেকের সম্পর্ক রয়েছে। মারধর করা হয়নি। সামান্য কথা কাটাকাটি হয়েছে।
অভিযুক্ত শওকত হোসেন বলেন, মোটর সাইকেল নিয়ে ফজল করিমকে সাথে তার বাড়িতে যাচ্ছি। বাড়ির সামনে পৌঁছলে ছেনুয়ারা গাড়ি থামিয়ে আমাকে জুতাপেঠা করে। তার সাথে আমার পুর্বের পরিচয় নেই। মানুষের মুখে একটু একটু শুনেছি ফজল করিমের সাথে ওই মহিলার অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। আমি ফজল করিমকে ভাই ডেকেছি। সে সুবাধে তার বাড়িতে মাঝে মধ্যে বেড়াতে আসি। আমি চট্টগ্রাম শহরে একটি প্রেসে চাকুরী করি।

পেকুয়া থানার ওসি (তদন্ত) কানন সরকার জানায়, লিখিত অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category