• শুক্রবার, ০৬ অগাস্ট ২০২১, ০৭:৩৯ পূর্বাহ্ন

“সামুদ্রিক মৎস আইন ২০২০” এই কালো আইন প্রত্যাহার করতে হবে এই দাবিতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ও মানববন্ধন করেন মেরিন সেক্টরের সংশ্লিষ্ট নাবিকেরা

গিয়াস উদ্দিন সিকদার বিশেষ প্রতিনিধি চট্টগ্রাম মহানগর / ১৭০ Time View
Update : সোমবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২০

“চট্রগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে আত্বঘাতী কালো আইন বাতিল ও নিরাপদ মেরিন ফিশিং এবং
‌”সামুদ্রিক মৎস্য আইন 2020” প্রত্যাহার চাই-করতে হবে এই দাবীতে “সামুদ্রিক মৎস্য আইন 2020” একটি জনস্বার্থ, বিরোধী মেরিন অফিসারদের স্বার্থবিরোধী, সামগ্রিকভাবে সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদ বিধ্বংসী আত্মঘাতী কালো আইন বলে অবিহিত করেন।

বিগত 26 শে নভেম্বর 2020 ইং মহামান্য রাষ্ট্রপতি স্বাক্ষরের মাধ্যমে গেজেট হওয়া “সামুদ্রিক মৎস আইন 2020 (১৯নং আইন 2020 সাল) প্রনীত হয়েছে। উক্ত আইন প্রণয়নপর্বে বাংলাদেশের মেরিন ফিশিং সেক্টরে বিরাজমান এবং কর্মরত ফিশিং ভেসেল মালিক সমিতি, ফিশিং ভেসেল মেরিন অফিসার সংগঠন, ফিশিং ভেসেল নাবিক সংগঠন সমূহের সাথে আলোচনা বা মতবিনিময় করা হয়নি। ফলে আইনটিতে অযাচিতভাবে মেরিন ফিশিং ভেসেল মালিক ও স্কিপার ও মেরিন অফিসার এবং নাবিকদের তথাকথিত “অথরাইজড অফিসার” দিয়ে যখন তখন হয়রানী, জেল-জুলুম, লক্ষ,লক্ষ টাকার সরাসরি বিধান রাখা হয়েছে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে মেরিন ফিশিং সেক্টরের সকল ফিশিং ভেসেল মালিক, সকল ফিশিং ভেসেল স্কীপার, মেরিন অফিসার, নাবিকদের মধ্যে ক্ষোভের সঞ্চার হয়েছে। ফলে নতুন “সামুদ্রিক মৎস আইন ২০২০” পাশ হওয়ার কারনে সকল ফিশিং ভেসেল বঙ্গোপসাগরে ফিশিং অপারেশন চালিয়ে যেতে যুক্তিপূর্ণ বিবেচনায় ফিশিং ভেসেল সমূহ বন্দরে ফিরে আসছে এবং জাতির বিবেকের সামনে আলোচ্য আইনের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে।

“সামুদ্রিক মৎস আইন ২০২০” প্রতিরোধ কমিটি সিনিয়র ক্যাপ্টেন গন বলেন, এই আইনের প্রতিস্থাপিত আইন প্রণয়ন করার ব্যবস্থা না নেওয়া পর্যন্ত মেরিন ফিশিং সেক্টরের স্টকহোল্ডার, মালিক, মেরিন অফিসার, নাবিকদের ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া বিক্ষোভ এবং মানববন্ধন প্রেস কনফারেন্স এবং শান্তিপূর্ন প্রতিবাদ কর্মসূচী অব্যাহত থাকবে বলে জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category