• রবিবার, ২৪ অক্টোবর ২০২১, ০২:১৫ অপরাহ্ন

স্কুলের মাঠ নয়; যেন ডোবা জলাশয়!

মুহাম্মদ ওমর ফারুক / ২৪০ Time View
Update : সোমবার, ২১ জুন, ২০২১

চারদিকে শুধু পানি আর পানি! প্রথমে দেখলে মনে হবে এটি যেন একটি পুকুর। কিন্তু না! এটি আসলে কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের জি,এন,এ মিশনারী উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠ। সামান্য বৃষ্টি হলেই পানি জমে যায়।
বর্ষা মৌসুম আসলেতো কোন কথাই নাই, বিদ্যালয়ের মাঠ পরিনত হয় পুকুরে। তখন স্থানীয় তরুণ -যুব খেলোয়াড়রা অনুশীলন করতে পারেনা।
এ মাঠেই ক্রিকেট, ফুটবল, হ্যান্ডবলসহ সব ধরনের খেলা অনুষ্ঠিত হয়। মাঠের এ অবস্থার জন্য বন্ধ থাকছে খেলাধুলা। নিয়মিত খেলতে না পারায় হতাশ খেলোয়াড়রা।
একসময় এই মাঠের জৌলুস ছিল। স্থানীয় স্টেডিয়াম হিসেবে উপজেলা পর্যায়ে ফুটবল টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হতো, অনেক জাতীয় পর্যায়ের খেলোয়াড় এই মাঠে খেলে গেছেন।
অনেক ঐতিহাসিক স্বাক্ষর বহন করে চলেছে মাঠটি। এছাড়া, বিজয় দিবস, স্বাধীনতা দিবস, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস সহ রাজনৈতিক ও সামাজিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন চিত্ত বিনোদন ও বড় ধরনের সভা সমাবেশ হয় এখানে।
অথচ বিশাল এ মাঠটি যেন এখন অভিভাবকশূন্য। এই মাঠে পর্যাপ্ত পয়ঃ নিষ্কাশনের কোনও ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় অল্প বৃষ্টিতেই পানি জমে যায়।
আর বর্ষা মৌসুমে থাকে হাঁটুপানি, যা মাছ চাষের জন্য উপযোগী!
মাঠ সংলগ্ন একটি পুরনো বাজার (শামশু মিয়ার বাজার) আছে। যাতে রোজ সকাল-সন্ধ্যায় প্রচুর লোকসমাগম ঘটে এবং অনেক সওদা-পাতিও বেচা-বিক্রি হয়।
ইউনিয়নের একমাত্র উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয় সহ একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও একটি কিন্ডারগার্টেন স্কুল থাকায় মাঠে প্রতিদিন শত শত ছাত্রছাত্রীর সমাগম ঘটে।
তাছাড়া পাশে একটি কেন্দ্রীয় জামে মসজিদও রয়েছে। তাই এখানে বৃহত জানাযার নামাজও আদায় হয় এ মাঠে।
বর্ষা মৌসুমে হাঁটুপানিতে ডুবে থাকায় শিক্ষার্থীরা খেলাধুলা করতে পারছে না। মাঠ শুকনো থাকলে যুবসমাজ ব্যস্ত থাকে খেলাধুলায়। ফলে মাদকের ছোবল থেকে তারা রক্ষা পায়।
যত বেশি ক্রীড়াচর্চা হবে ততবেশি যুবসমাজ মাদক থেকে দূরে থাকবে।
কিন্তু এই মাঠের পানি দেখলে মনে হয় এটি একটি পুকুর কিংবা বদ্ধ জলাশয়।
স্থানীয় বাসিন্দা সাবেক ছাত্র নেতা সোহেল শহিদ জানায়, প্রতিদিন এলাকার তরুণ যুবকেরা মাঠে ফুটবল খেলে। কিন্তু মাঠে এভাবে পানি জমে জলাবদ্ধ থাকায় এখন আর খেলতে পারছেনা।
মাঠ শুকনো থাকলে যুবসমাজ ব্যস্ত থাকে খেলাধুলায়। ফলে মাদকের ছোবল থেকে তারা রক্ষা পায়। যত বেশি ক্রীড়াচর্চা হবে ততবেশি যুবসমাজ মাদক থেকে দূরে থাকবে। কিন্তু এই মাঠের পানি দেখলে মনে হয় এটি একটি পুকুর।
এই মাঠটি সংস্কার করা না হলে এলাকার যুবসমাজ মাদকের দিকে ঝুঁকে পড়তে পারে। তিনি কর্তৃপক্ষের কাছে মাঠটি দ্রুত সংস্কারের দাবি জানান।
এই মাঠটির প্রয়োজনীয় সংস্কার করে বছর জুড়ে খেলাধুলার উপযুক্ত করে তুলতে মাননীয় সাংসদ জাফর আলম (এমপি) এবং জেলার ফুটবল ফেডারেশনের (ডিএফএ) সভাপতি ও চকরিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ ফজলুল করিম সাঈদী’র  কাছে এলাকার ক্রীড়াপ্রেমী তরুণ সমাজ সহ সচেতন মহল  জোর দাবী জানিয়েছেন।##


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category