• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০২:৫৪ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
ঠাকুরগাঁও রানীশংকৈলে প্রধান শিক্ষকদের মতবিনিময় ও রিটার্নস সভা অনুষ্ঠিত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গৃহবধূর নগ্ন ভিডিও তৈরি করে ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার হুমকির অভিযোগ বিশ্বে তেলের দাম কমলেও দেশে কেন কমছে না? কারণ জানালেন মন্ত্রী পেকুয়ায় অপহরনের অভিযোগ তুলে অসহায় পরিবারকে হয়রানীর অভিযোগ! পেকুয়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে দোকানীকে হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগ গাজায় ইসরাইলি হামলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৭ পিঁপড়ে গোঁ ধরেছে, উড়বেই ইসরাইলি বিমানের জন্য আকাশ উন্মুক্ত করবে না ওমান জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সমাবেশ থেকে সরকারের পদত্যাগের ডাক বিএনপির শিল্প-কারখানা এলাকাভিত্তিক এক দিন বন্ধ রাখতে প্রজ্ঞাপন জারি

লামায় ৫৫১ পরিবারের মাঝে সোলার বিতরণ

মোহাম্মদ শাহনেওয়াজ বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি / ৬০ Time View
আপডেট : মঙ্গলবার, ৫ জুলাই, ২০২২

শেখ হাসিনার উদ্যোগ, ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ” এ শ্লোগানকে সামনে রেখে প্রতিটি পরিবারকে শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় লামায় বিদ্যুৎবিহীন এলাকায় ২ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়েছে।

রবিবার সকাল ১০টায় উপজেলার সরই ইউনিয়নে পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রনালয়ের উদ্যোগে আনুষ্ঠানিকভাবে ৯টি ওয়ার্ডের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ৫৫১ পরিবারের মাঝে এ সকল সোলার বিতরণ করা হয়।

এ লক্ষে সরই ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়াতনে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় ইউপি চেয়াররম্যান মোঃ ইদ্রিস কোম্পানীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়াররম্যান মোস্তফা জামাল।

এতে নিবার্হী কর্মকর্তা মোস্তফা জাবেদ কায়সার, জেলা পরিষদ সদস্য ফাতেমা পারুল, জেলা সহকারী তথ্য অফিসার খন্দকার তৌহিদুল ইসলাম ও সরই ইউনিয়ন আওয়াামী লীগ সভাপতি নুরুল আলম বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মোস্তফা জামাল বলেন, “মুজিববর্ষ উপলক্ষে প্রধান মন্ত্রীর ঘোষণা ছিল ঘরে ঘরে বিদ্যূৎ। তারই আলোকে পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের তত্ত্বাবধানে পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের বাস্তবায়নে প্রত্যন্ত এলাকায় সোলার প্যানেল স্থাপনের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ প্রকল্প ২য় পর্যায় শীর্ষক প্রকল্পের উপকার ভোগীদের মাঝে এই সোলার বিতরণ করা হয়।

পরে ইউনিয়নের ৩,৭,৮ নং ওয়ার্ডের দুর্গম পাহাড়ের উঁচু নিচুতে বসবাসরত ৫৫১ পরিবারের মধ্যে ২ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার সোলার সিস্টেম বিতরণ করা হয়।

এসব সোলার সিস্টেম পেয়ে উপকারভোগীদের কয়েকজন র‌্যাংত্র ম্রো, লংনান ম্রো, তাংহ ম্রো জানান, আমরা কখনও এলাকায় বিদ্যুতের আলো পাব ভাবিনি। এর মাধ্যমে আমরা ঘরে আলো জ্বালাতে পারব, মোবাইলে চার্য দিতে পারব। আজ আমরা অনেক খুশি।

জানা যায়, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ের বিদ্যমান পরিস্থিতি পেছনে ফেলে ৫০ বছরে দেশের বিদ্যুৎখাতে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জিত হয়েছে। এখন গ্রিড এলাকায় দেশের শতভাগ মানুষ বিদ্যুৎ সুবিধা পাচ্ছে। পাহাড়, কিছু দুর্গম ও বিচ্ছিন্ন অফগ্রিডের ১ শতাংশ এলাকায় বিদ্যুৎ পৌঁছে দেওয়ার কাজ করে যাচ্ছে সরকার। সেই হিসেবে দেশের গ্রিড-অফগ্রিড মিলে শতভাগ মানুষকে বিদ্যুতায়নের আওতায় আনতে বিশেষ এ প্রকল্প চালু করেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো ক্যাটাগরি