• শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২, ১০:১৮ পূর্বাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
বাংলাদেশের মানুষ ‘বেহেশতে’ আছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী নিরাপদ ভ্রমণের জন্য রাসূল সা: এর শিক্ষা ভরাডুবির সফর শেষে দেশে ফিরলেন টাইগাররা ভারতের প্রখ্যাত গবেষক আলেম সাইয়েদ মাহমুদ হাসান নদভী আর নেই সাতক্ষীরায় জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ব্রুনাই হাইকমিশনারের বৃক্ষ রোপণ বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে সাপ্তাহিক ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে ভাবছে সরকার সমুদ্র বন্দরসমূহে আজও ৩ নম্বর সতর্ক সংকেত আওয়ামী লীগ চাপে পড়ে নিজেদের সভ্য দেখাচ্ছে : মির্জা ফখরুল আনোয়ারায় ইসলামী ছাত্রসেনার মাদক বিরোধী সম্মেলন ও কাউন্সিল অধিবেশন অনুষ্ঠিত  আনোয়ারায় বাস-ভাড়া নৈরাজ্য ঠেকাতে এ্যাসিলেন্ডের অভিযান

গুলিবিদ্ধ জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী আবে মারা গেছেন

বিবিসি একাত্তর ডেস্ক / ২৭ Time View
আপডেট : শুক্রবার, ৮ জুলাই, ২০২২

দুর্বৃত্তের গুলিতে আহত জাপানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন।

জাপানের জাতীয় সম্প্রচারমাধ্যমের বরাত দিয়ে শুক্রবার (৮ জুলাই) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি।

দেশটির নারা শহরে একটি অনুষ্ঠানে তাকে পিছন থেকে গুলি করা হয়। এতে তিনি লুটিয়ে পড়েন। পরে রক্তাক্ত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

নারা শহরের ফায়ার সার্ভিস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আবেকে গুলিটি করা হয়েছে গলার ডান পাশ থেকে।

জাপানের জাতীয় সম্প্রচার মাধ্যম এনএইচকে জানিয়েছে, শিনজো আবে ওই অনুষ্ঠানে ভাষণ দিচ্ছিলেন। ভাষণের মাঝামাঝি তাকে পিছন থেকে গুলি করা হয়। ৪১ বছর বয়সী ওই সন্দেহভাজন হামলাকারীকে আটক করে পুলিশের হেফাজতে নেয়া হয়েছে।

শিনজো আবে জাপানের সবচেয়ে দীর্ঘস্থায়ী প্রধানমন্ত্রী। ২০২০ সালে স্বাস্থ্যগত সমস্যার উল্লেখ করে তিনি পদত্যাগ করেন। পরে জানা যায়, তিনি আলসারেটিভ কোলাইটিজে ভুগছেন।

জাপান পার্লামেন্টের উচ্চ কক্ষের নির্বাচনে একজন প্রার্থির সমর্থনে প্রচারণা চালাোর জন্য আবে নারা শহরে গিয়েছিলেন।

আবে ২০২০ সালে প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে পদত্যাগ করলেও জাপানের ক্ষমতাসীন লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির রাজনীতিতে তার বড় প্রভাব রয়েছে। এই দলের বড় একটি অংশের নিয়ন্ত্রণ আবের হাতে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর শিনজো আবে ছিলেন সবচেয়ে কম বয়সী প্রধানমন্ত্রী। ২০০৬ সালে তিনি প্রথবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হন।

২০১২ সালে তিনি আবারো প্রধানমন্ত্রী হন।

আবে ধনাঢ্য রাজনৈতিক পরিবার থেকে এসেছেন। তার বাবা ছিলেন জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী। এছাড়া তার এক দাদা জাপানের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।

জাপানে বন্দুক হামলা খুবই বিরল ঘটনা। কারণ, সেখানে অস্ত্র বহন করা নিষিদ্ধ।

এছাড়া জাপানে রাজনৈতিক ব্যক্তিদের টার্গেট করে হত্যা করার ঘটনাও খুব একটা দেখা যায় না।

২০০৭ সালে নাগাসাকি শহরের মেয়র ইচো ইতোকে গুলি করে হত্যা করেছিল গ্যাংস্টাররা। ১৯৬০ সালে জাপানের সোশ্যালিস্ট পার্টির প্রধানকে বক্তব্য দেয়ার সময় গুলি করে হত্যা করে ডানপন্থীরা।

সূত্র : বিবিসি


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো ক্যাটাগরি