• শুক্রবার, ১২ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০৭ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
ঠাকুরগাঁও রানীশংকৈলে প্রধান শিক্ষকদের মতবিনিময় ও রিটার্নস সভা অনুষ্ঠিত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে গৃহবধূর নগ্ন ভিডিও তৈরি করে ফেসবুকে ছেড়ে দেওয়ার হুমকির অভিযোগ বিশ্বে তেলের দাম কমলেও দেশে কেন কমছে না? কারণ জানালেন মন্ত্রী পেকুয়ায় অপহরনের অভিযোগ তুলে অসহায় পরিবারকে হয়রানীর অভিযোগ! পেকুয়ায় পূর্ব শত্রুতার জেরে দোকানীকে হামলা ও ভাংচুরের অভিযোগ গাজায় ইসরাইলি হামলায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৭ পিঁপড়ে গোঁ ধরেছে, উড়বেই ইসরাইলি বিমানের জন্য আকাশ উন্মুক্ত করবে না ওমান জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির প্রতিবাদে সমাবেশ থেকে সরকারের পদত্যাগের ডাক বিএনপির শিল্প-কারখানা এলাকাভিত্তিক এক দিন বন্ধ রাখতে প্রজ্ঞাপন জারি

শ্রীলঙ্কার মতো ঝুঁকিতে পাকিস্তান, রাশিয়াসহ ডজনখানেক দেশ

বিবিসি একাত্তর ডেস্ক / ৩২ Time View
আপডেট : শনিবার, ১৬ জুলাই, ২০২২

চরম অর্থনৈতিক সঙ্কটে তীব্র গণবিক্ষোভের মুখে শ্রীলংকার সরকারের পতন ঘটেছে। মূলত ঋণ খেলাপি, মুদ্রার মান কমে যাওয়া, বন্ডের সম্প্রসারণ ও বৈদেশিক মুদ্রা মান তলানির কারণেই সঙ্কট নেমে এসেছে দেশটির অর্থনীতিতে। শ্রীলংকার মতো লেবানন, রাশিয়া, সুরিনাম এবং জাম্বিয়া ইতোমধ্যেই ঋণ খেলাপির তালিকায় উঠে এসেছে। বেলারুশও ঋণ খেলাপি হওয়ার দ্বারপ্রান্তে রয়েছে এবং কমপক্ষে আরো ডজনখানেক দেশ ক্রমবর্ধমান ঋণের খরচ, মুদ্রাস্ফীতিসহ বিভিন্ন কারণে সবদিক থেকেই অর্থনৈতিক পতনের আশঙ্কায় রয়েছে।

শনিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স এক প্রতিবেদনে এসব তথ্য জানিয়েছে। রয়টার্সের অর্থনৈতিক সঙ্কটের মুখে থাকা দেশের তালিকা চমকপ্রদ। এই তালিকার শীর্ষে রয়েছে আর্জেন্টিনা। এর পরই রয়েছে মিশর ও ইকুয়েডর।

আর্জেন্টিনা
সব সময়ই ঋণ খেলাপির তালিকায় থাকা আর্জেন্টিনা তার বিশ্ব রেকর্ড ধরে রাখতে পারে বলে মনে হচ্ছে। পেসো এখন কালোবাজারে প্রায় ৫০% ডিসকাউন্টে লেনদেন করা হচ্ছে। দেশটির রিজার্ভও খুব কম। দেশটিতে ডলারে মাত্র ২০ সেন্টে বন্ড বাণিজ্য হয়, যা দেশের ২০২০ ঋণ পুনর্গঠনের পরে যা ছিল তার অর্ধেকেরও কম। যদিও দেশটির সরকারের কাছে ২০২৪ সাল পর্যন্ত পরিষেবার জন্য কোনো উল্লেখযোগ্য ঋণ নেই। তবে এর পরে ঋণের পরিমাণ আরো বাড়বে এবং সেই শক্তিশালী ভাইস প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টিনা ফার্নান্দেজ ডি কির্চনার আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল থেকে প্রত্যাহার করার জন্য উদ্বেগ প্রকাশ করতে পারে।

ইউক্রেন
রাশিয়ার আগ্রাসনের কারণে ইউক্রেনকে প্রায় অবশ্যই ২০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি ঋণ পুনর্গঠন করতে হবে বলে মরগান স্ট্যানলি এবং আমুন্ডির মতো হেভিওয়েট বিনিয়োগকারীরা সতর্ক করেছেন। চলতি বছরের সেপ্টেম্বরে ১ দশমিক দুই বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বন্ড পেমেন্ট বাকি থাকায় এই সংকটের শুরু হয়। সাহায্যের অর্থ এবং রিজার্ভের অর্থ হলো কিয়েভ সম্ভাব্য অর্থ প্রদান করতে পারে। কিন্তু রাষ্ট্রচালিত নাফটোগাজ চলতি সপ্তাহে দুই বছরের ঋণ ফ্রিজ করার আহ্বান জানিয়েছে। সরকার এই আহ্বানে সাড়া দেবে বলে বিনিয়োগকারীরা আশঙ্কা করছেন।

পাকিস্তান
পাকিস্তান চলতি সপ্তাহে আইএমএফের সঙ্গে একটি গুরুত্বপূর্ণ চুক্তি করেছে। তবে অগ্রগতি আরও সময়োপযোগী নাও হতে পারে। উচ্চ আমদানি মূল্য দেশটিকে অর্থপ্রদানের ভারসাম্য সংকটের দ্বারপ্রান্তে ঠেলে দিতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। দেশটিতে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৯ দশমিক ৮ বিলিয়ন ডলারে নেমে এসেছে, যা পাঁচ সপ্তাহের আমদানির জন্য খুব কমই যথেষ্ট। পাকিস্তানি রুপি দুর্বল হয়ে রেকর্ড পরিমাণে নেমে এসেছে। নতুন সরকারকে এখন দ্রুত ব্যয় কমাতে হবে কারণ দেশটি মোট রাজস্বের ৪০ শতাংশ সুদ দিতে ব্যয় করে।

এছাড়াও শ্রীলংকার মতো পরিণতির আশঙ্কায় রয়েছে তিউনিশিয়া, ঘানা, ইকুয়েডর, এল সালভেদর, মিসর, কেনিয়া ও নাইজেরিয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো ক্যাটাগরি