• শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৩:৩৯ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
খুটাখালীতে তমিজিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বাড়ীতে দুর্ধর্ষ চুরি সাফারী পার্কের সিংহ রাসেলের অকাল মৃত্যূ বিপ্লব ঘটবে অর্থনীতিতে! তাপবিদ্যুৎ কাজের অগ্রগতি ৭৫ শতাংশ – হচ্ছে সমুদ্রবন্দর ও রেললাইন! ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে বিজয়ী হলেন জাতীয় পার্টির হাফিজউদ্দীন আহমেদ চকরিয়া ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে হামলা ভাংচুর ও মারধর, আহত-৫ টেকনাফ মৌচনী ক্যাম্পের রোহিঙ্গা নুর নাহার এখন বাংলাদেশী পেকুয়ায় কর্মজীবির জায়গায় রাতেই স্থাপনা নির্মাণ পেকুয়ায় দরবার সড়কের বেহাল দশায় চরম দুর্ভোগ! ফাঁসিয়াখালীতে সামাজিক বনায়নের গাছ কর্তনে পাচারকালে জব্দ চকরিয়ায় প্রতিবন্ধির বসতভিটা কেড়ে নিতে প্রবাসী নুরুল আমিনের হুমকি

ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে স্কুলের নামে প্রকল্প দেখিয়ে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি / ২০৮ Time View
আপডেট : সোমবার, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে একটি কেজি স্কুলের নামে টিআর প্রকল্পের বরাদ্দ দেখিয়ে অর্থ আত্মসাত করার অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে সাংবাদিকদের কোন তথ্য দিতে অস্বীকার করে ঐ চেয়ারম্যান বলেন, “সাংবাদিকদের কি কোন কাজ নাই, কে কি করে, আপনারা কি শুধু এসব দেখে বেড়ান ?

জানা যায়, গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষনা-বেক্ষন কর্মসূচী টিআর প্রকল্পের আওতায় ২০২১-২২ অর্থ বছরে ঠাকুরগাও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার বৈরচুনা মডেল কিন্ডার গার্টেন স্কুলের দরজা-জানালা সংস্কার প্রকল্পের নামে ১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন বৈরচুনা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান টেলিনা সরকার হিমু। এরপর ভুয়া প্রকল্প কমিটি দেখিয়ে বরাদ্দের অর্থ উত্তোলন করেন ওই ইউপি চেয়ারম্যান। এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষক দীলিপ রাজ বংশী জানান, ইউপি চেয়ারম্যান টেলিনা সরকার হিমু তার স্কুলের সভাপতি। তিনি স্কুলের নামে ১ লাখ টাকা বরাদ্দ দেন। কয়েক মাস আগে কিছু কাগজ পত্রে এবং একটি ব্যাংকের চেকে সই নেন চেয়ারম্যান। এরপর আর কিছু জানেন না তিনি। প্রধান শিক্ষক আরো জানান, এখন পর্যন্ত তিনি কোন টাকা পাননি বা তার স্কুলে কোন সংস্কার কাজ হয়নি। একটি নির্ভর যোগ্য সুত্র জানায়, ইউপি চেয়ারম্যান টেলিনা সরকার হিমু ঐ স্কুলের নামে বরাদ্দ দিয়ে ভুয়া প্রকল্প কমিটি দাখিল করে প্রকল্পের টাকা উত্তোলন করে আত্মসাত করেছেন।
বে-সরকারি কেজি স্কুলে সরকারি বরাদ্দ দেওয়া প্রসঙ্গে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আক্তারুজ্জামান বলেন, কেজি স্কুলে সরকারি বরাদ্দ দেওয়া সম্পুন্ন বেআইনি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

এ বিষয়ে রবিবার বিকালে মোবাইল ফোনে ইউপি চেয়ারম্যান টেলিনা সরকার হিমুর কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “সাংবাদিকদের কি কোন কাজ নাই, কে কি করে, আপনারা কি শুধু এসব দেখে বেড়ান। “এ বিষয়ে আপনাকে কোন তথ্য দিবো না আমি”।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ শেষ হলেও বরাদ্দের সব অর্থ এখনো ছাড় করা হয়নি। ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হয়েছে। কাজের অগ্রগতি দেখে বাকি টাকা ছাড় করা হবে। কাজ না হওয়া প্রসঙ্গে প্রকল্প বান্তবায়ন কর্মকর্তা বলেন, এ বিষয়ে প্রকল্প সভাপতিকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। কোন উত্তর পাওয়া যায়নি। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো ক্যাটাগরি