• শুক্রবার, ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৪:০৩ অপরাহ্ন
  • [gtranslate]
শিরোনাম
খুটাখালীতে তমিজিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষের বাড়ীতে দুর্ধর্ষ চুরি সাফারী পার্কের সিংহ রাসেলের অকাল মৃত্যূ বিপ্লব ঘটবে অর্থনীতিতে! তাপবিদ্যুৎ কাজের অগ্রগতি ৭৫ শতাংশ – হচ্ছে সমুদ্রবন্দর ও রেললাইন! ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে বিজয়ী হলেন জাতীয় পার্টির হাফিজউদ্দীন আহমেদ চকরিয়া ইউপি সদস্যের নেতৃত্বে হামলা ভাংচুর ও মারধর, আহত-৫ টেকনাফ মৌচনী ক্যাম্পের রোহিঙ্গা নুর নাহার এখন বাংলাদেশী পেকুয়ায় কর্মজীবির জায়গায় রাতেই স্থাপনা নির্মাণ পেকুয়ায় দরবার সড়কের বেহাল দশায় চরম দুর্ভোগ! ফাঁসিয়াখালীতে সামাজিক বনায়নের গাছ কর্তনে পাচারকালে জব্দ চকরিয়ায় প্রতিবন্ধির বসতভিটা কেড়ে নিতে প্রবাসী নুরুল আমিনের হুমকি

পাবনায় পুলিশ পরিচয়ে ফেন্সিডিল আটক; তদন্তে বেড়িয়ে আসতে পারে অনেক অজানা কাহিনী

ঈশ্বরদী উপজেলা প্রতিনিধি: / ১৬৮ Time View
আপডেট : বুধবার, ২১ সেপ্টেম্বর, ২০২২

ঈশ্বরদীতে মটরসাইকেলে বহন করা ২’শ পিচ ফেন্সিডিল আটক । মাল ছেড়ে দেয়ার কথা বলে নগদ ৫০ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়ে ফেন্সিডিল না ছেড়ে পুলিশের এক এ এস আই ও সোর্সের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা । ফেনসিডিল আটক করে সোর্স । আটকের সময় সোর্সের হাতে ছিল অকিটকি ও পুলিশের হ্যান্ডকাফ।

গত ( ১৭ সেপ্টেম্বর) রাত ১১.২২ মিনিট সময় একটি ফোন কলে ঘটনার বিবারনে জানা যায় , বাঘা থেকে ছেড়ে আসা একটি TVS মটরসাইকেলে থাকা দুটি ব্যাগ ভর্তি ২’শ পিচ ফেন্সিডিল সহ দুই যুবককে আটক করেছে। আটক কৃত ২ ‘শ পিচ ফেন্সিডিল ভাগাভাগির সাথে এ এস আই সাফিরুলের সম্পৃক্ততা উঠে আসে ঐ কথোপকথনের মাধ্যমে।

রাত ১১.২৮ মিনিটে ঈশ্বরদী থানার কক্তব্যরত ডিউটি অফিসারের নিকট ফোন দিয়ে এ এস আই সাফিরুলের ফোন নাম্বার টি চাওয়া হয়। নাম্বার না দিয়ে একপর্যায়ে তিনি বলেন আমিই এ এস আই সাফিরুল। এসময় তার কাছে জানতে চাওয়া হয় আপনি কি (১৬ সেপ্টেম্বর) শুক্রবার আড়মবাড়ীতে ফেন্সিডিল আটকে গিয়েছিলেন কি। তখন তিনি বলেন আমি ট্রেনিং এ ছিলাম সিরাজগঞ্জে। আসছি শুক্রবার দিবাগত রাত ৯ টায়।

এদিকে এ এস আই সাফিরুলের সাথে কথা বলার পর রাত ১২. ২২ মিনিটে আবারো বাঘা থেকে একজন বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী ফোন দিয়ে বলেন আপনি এ এস আই সাফিরুলকে কি বলছেন..? সে আমাকে ফোন দিয়ে বলছেন সাংবাদিক লাগিয়ে আমার কিছুই করতে পারবেন না। বিষয়টি এখানেই ধামাচাপা দিয়েদেন। তা না হলে আপনি বিপদে পড়বেন। আমি যে তথ্য দিয়েছি তা শতভাগ নিশ্চিত সত্য।

এদিকে এই ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার রহস্য উন্মোচন করার লক্ষ্যে এই প্রতিবেদক দু’দিন ধরে একাধীক সুত্র মতে গভীর অনুসন্ধান চালায়। অনুসন্ধানে উঠে আসে জানা অজানা অনেক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। যাকিনা আশ্চর্য ও আতঙ্কিত হওয়ার মতো ঘটনা ।

ঘটনার সুত্র ধরে ১৮ সেপ্টেম্বর আড়মবাড়ীয়া বাজারে গিয়ে দেখা মিলে একসময়ের বিখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী ন্যাংড়া বিপু । ২’শ পিচ ফেন্সিডিল আটকের সময় ঘটনাস্থলে ছিলেন।এসময় তিনি এ সব বিষয়ে এড়িয়ে যায়। একপর্যায়ে বলে এমন ঘটনা অহরহই ঘটছে বলেই বিভিন্ন মহলে ফোন দিতে থাকে।

তাছাড়া ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত তার অপর সহযোগী একই এলাকার মহাসিনের পুত্র আশিকের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন আশিক তো সাফিরুল পুলিশের সোর্স । আশিকের ফোনে একাধিকবার ফোন দিলে ফোন রিসিভ করেননি। উপরোক্ত ঘটনার সুত্র ধরে পরদিন (১৯ সেপ্টেম্বরে) বাঘার উদ্দেশ্য রওনা দেন এই প্রতিবেদক। সেখানে গিয়ে কথা হয় বাঘার একজন সাংবাদিকের সাথে। তার সাথে কথা হলে তিনি ফেন্সিডিল আটকের বিষয়টি শতভাগ নিশ্চিত করে বলেন ঘটনাটি সত্য তাকে ধামাচাপা দেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ঈশ্বরদী থানার একজন পুলিশ কর্মকর্তা। আপনার সন্মানী পেয়ে যাবেন।

অপর একটি সূত্র থেকে ঈশ্বরদীতে ফেন্সিডিল বহন কারী দুই ব্যাক্তির নাম ঠিকানা সংগ্রহ করা হয়। তারা হলো মোঃ সাহেব আলী (২৭) অপর জন একই এলাকার মোঃ শিমুল (২৭) উভয় গ্রাম কলি গ্রাম বাঘা, রাজশাহী। সেখানে গিয়ে কথা হয় ফেন্সিডিল বহনকারী সাহেব ও শিমুলের সাথে। তাঁরা বলেন সাহেব আলীর নিজস্ব T V S একটি মটরসাইকেল যোগে দুটি ব্যাগ ভর্তি ২’শ পিচ ফেন্সিডিল তারা ঈশ্বরদীতে নিয়ে আসছিল। এসময় তাদের মটরসাইকেলটি ঈশ্বরদী ইয়ার পোর্ট মোড় এলাকায় পথ প্রতিরোধ করে। ন্যাংড়া বিপু, পুলিশের সোর্স আশিক সহ ৩/৪ জন। আটককৃত ব্যাক্তিদের হাতে পুলিশের হ্যান্ডকাফ পড়িয়ে দেয় আশিক ও ন্যাংড়া বিপু। তাদের কাছে ছিল পুলিশের অকিটকি।

একপর্যায়ে আটককৃতদের ইয়ার পোর্ট এলাকার পরিত্যক্ত এপেক্স কারখানায় নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ফেন্সিডিল ছেড়ে দেয়ার অঙ্গীকার করে নগদ টাকার বনিবনার দরকষাকষি শুরু হয়। এতে দরকষাকষি না মিললে ঈশ্বরদী থানার এ এস আই সাফিরুলকে খবর দেয়।খবর দাতাকে এ এস আই সাফিরুল বলেন মালের গায়ে কোন শালা হাত দিলে খবর আছে বলে সাফ জানিয়ে দেয়।

ঐদিন বিকেলে পুলিশ অফিসার ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে সোর্স দের সাথে দেনদরবার করে মিট করেন।

এদিকে ফেন্সিডিল বহনকারীরা তাদের পরিচিত ঈশ্বরদীর জনৈক একজনের কাছ থেকে নগদ ৫০ হাজার টাকা ঈশ্বরদী ইসলামীয়া ব্যাংকের একাউন্ট বুথ থেকে তুলে পুলিশের সোর্স আশিকের হাতে দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন আমাদের সুত্র । টাকা পাওয়ার পর ফেন্সিডিল বহনকারী দের ছেড়ে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে ঈশ্বরদী থানার অফিসার্স ইনচার্জ অরবিন্দ সরকারের সাথে কথা বললে তিনি বলেন আমি এসব বিষয়ে কিছুই জানি না। আপনি জানাচ্ছেন এর জন্য ধন্যবাদ। বিষয়টি আমি দেখছি।

এই ঘটনা জানাজানি হলে ঈশ্বরদী সংশ্লিষ্ট মহলে গুঞ্জন উঠেছে তাহলে কি গত কয়েক মাসে ভুয়া ডিবি সেজে কয়েকটি ছিনতাই এর ঘটনা ঘটেছে।

তাহলে কি এঁরা জড়িত রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা দরকার সংশ্লিষ্ট মহল দাবি জানান।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো ক্যাটাগরি